1. info@www.dainikdeshbarta.com : bissho sangbad Online : bissho sangbad Online
  2. info@www.dainikdeshbarta.com : Dainik Desh Barta :
মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:১৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
সোনাইমুড়ীর গজারিয়া জনকল্যাণ সংস্থার ঈদ পুনর্মিলনী ও আলোচণা সভা অনুষ্ঠিত শিবগঞ্জে ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত। পটিয়ায় এস.এ.নুর উচ্চ বিদ্যালয়ের নবনির্মিত ভবন উদ্ভোধন করেন বিচারপতি-শেখ আরিফ হাসান সোনাইমুড়ী থানার আয়োজনে সাংবাদিকদের মধ্যাহ্নভোজ সোনাইমুড়ী প্রেসক্লাবে ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত শিবগঞ্জে অগ্নিকান্ডে ৪টি গরুর মৃত্যু, প্রায় ৭ লাখ টাকার ক্ষতি। চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের নব-নির্বাচিত প্যানেল চেয়ারম্যান ফারহানা আফরিন  পটিয়ায় সংবর্ধিত  বেতছড়ি জামে মসজিদের খতিবের বিদায়ী সংবর্ধনা। গ্রীন মোহনগঞ্জ” এর সার্বিক সফলতা ও পাশে থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন জনাব সাজ্জাদুল হাসান এমপি। চাঁপাইনবাবগঞ্জে শান্তিপূর্ণভাবে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত।

পটিয়ার সন্তান গেরিলা মুক্তিযোদ্ধা ফজল আহমদ’র শুভ জম্মদিন উপলক্ষে আরেক মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের শুভেচ্ছা

  • প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ১৮ মে, ২০২৩
  • ১৯১ বার পড়া হয়েছে

অরুন নাথ,পটিয়া প্রতিনিধিঃ চটগ্রামের পটিয়া উপজেলার ধলঘাট ইউনিয়নের তেকোটা নামক গ্রামের এক কৃষক পরিবারের সন্তান বীর গেরিলা মুক্তিযোদ্ধা ফজল আহমদ(৭০) এর জন্মস্হান।আজ বৃহস্পতিবার ১৯ মে তার শুভ জন্মদিন।
এ শুভ দিনে পটিয়া উপজেলার জিরি ইউনিয়নের সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধা স্বর্গীয় বৃন্দাবন নাথের পরিবারের পক্ষ থেকে বীর গেরিলা মুক্তিযোদ্ধা ফজল আহমদের জন্মদিনের শুভেচ্ছাসহ সুস্বাস্হ্য ও দীর্ঘায়ু কামনায় এক বার্তা জানান।
সুত্রে জানাযায় ফজল আহমদ কৃষক পরিবারের সন্তান হলেও জীবনের ৭০টি বছরে শিক্ষাজীবন,মহান স্বাধীনতার মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন,চাকুরী জীবন,সমাজসেবা সহ জীবন চাকার প্রতিঠি কাজে একজন সফলতার সহিত ব্যক্তিত্ব অর্জন করেছেন।এই দিনে পটিয়া উপজেলার ধলঘাট ইউনিয়নের তেকোটা গ্রামের কৃষক পরিবারে জন্ম গ্রহন করেন তিনি।তার পিতা ছিলেন কৃষক নেতা সমাজপতি এবং মা ছিলেন গৃহীনি।কৃষক পিতার চার কন্যা,পাচঁ পুত্র সন্তানের ন মধ্যে মুক্তিযোদ্ধা ফজল আহমত চতুর্থ।এই কৃষক পরিবার থেকেই স্কুল,কলেজ, বিশ্ব বিদ্যালয়,আইন কলেজে পড়াশুনা করে শিক্ষা জীবন শেষ করেন তিনি।এ ছাড়া কৃষক সমাজপতি পিতার আর্দশকে বুকে ধারন করে এগিয়ে যাওয়ার পথচলা এখনও অব্যহত।রাজনৈতিক জীবনে শুরু থেকেই প্রগতিশীল রাজনৈতিক সংগঠন কমিউনিষ্ট পার্টি,ছাত্র ইউনিয়ন,কৃষক সমিতি, এবং শ্রমিক সংগঠনের সাথে কাজ করেন ১৯৮০ পর্যন্ত। প্রথমে চট্রগ্রাম বন্দর ,এর পর চট্রগ্রাম কাষ্টমস হাউস, কাষ্টমস থেকে ৬ বছর পর বাংলাদেশ ব্যাংকে অত্যান্ত সততা মর্যদার সাথে সকল প্রতিষ্টানে দায়িত্ব পালন করেছেন।২০১৩ সালে বাংলাদেশ ব্যাংকের যুগ্ম পরিচালক হিসেবে অবসর গ্রহন করেন তিনি। বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ৩২ বছর দক্ষতার সাথে কমান্ডারের দায়িত্ব পালন করেছেন।
পরিবারে তার সহধর্মীনি বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের সহকারী জেনারেল ম্যানেজার হিসেবে নিষ্টার সাথে কর্মরত।তাদের পরিবারে সংসারে চার কন্যা সন্তান।দুই কন্যা সন্তান স্বামীসহ প্রকৌশলী হিসেবে আমেরিকায় কর্মরত।এক কন্যা সন্তান সরকারী চিকিৎসক,ছোট কন্যা সন্তান চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে হিউম্যান রিসোর্চ ম্যানেজম্যান্টে অনার্স পড়ছেন।মুক্তিযুদ্ধকালীন ন্যাপ কমিউনিষ্ট পার্টি ছাত্র ইউনিয়ন বিশেষ গেরিলা বাহিনীর সদস্য ।৭১ এর মহান মুক্তিযুদ্ধে ভারতের আসাম সেনানিবাস তেজপুরে গেরিলা যুদ্ধের প্রশিক্ষন গ্রহন করেছেন তিনি।
ভিডিও কনফারেন্সে টেলিযোগাযোগ পারিবারিক এসব অর্জন বিষয়ে কথা হলে বলেন আমার পিতা কৃষক সমাজপতি হলেও আমাকে এবং আমার ভাই বোনদের সুশিক্ষায় গড়ে তুলতে অসীম কষ্ট করেছেন,যাহা জীবনের প্রতিঠি স্হরে পিতার আদর্শ অনুস্মরন করে নিজের সন্তানদের আমি ও আমার সহধর্মীনির একান্ত প্রচেষ্টায় তাদের সু-শিক্ষায় গড়ে তুলেছি।জীবনে সৃষ্টি কর্তার নিকট পারিবারিক আর কোন কিছু চাওয়ার নাই।আল্লাহর কাছে একমাত্র চাওয়ার আছে সু-স্বাস্হ্য জীবন যাপন করে অসম্প্রদায়িক চেতনায় মানবসেবায় জাতি-ধর্ম-গোত্র-বর্ন নির্বিশেষে সকল মানুষের সেবা করার তৌপিক দান।
সেই জন্য সকলের কাছে তার জন্য এবং পরিবরে সকল সদস্যদের জন্য দোয়া ও আর্শীবাদ চান বীর গেরিলা মুক্তিযোদ্ধা ফজল আহমদ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট