1. info@www.dainikdeshbarta.com : bissho sangbad Online : bissho sangbad Online
  2. info@www.dainikdeshbarta.com : Dainik Desh Barta :
মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১০:৪৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
দুবাইয়ে পুরস্কৃত হলেন ৫১ বাংলাদেশি সিআইপি প্রবীণ আ’লীগ নেতা মোহাম্মদ নুর আলমের ইন্তেকাল পটিয়ায় বিভিন্ন অভিযোগে আনারস প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী হারুন এর সংবাদ সম্মেলন চাঁপাইনবাবগঞ্জে শুল্ক ফাঁকি দেয়া ১৫৬টি স্মার্ট মোবাইল ফোন জব্দ, আটক এক। প্রবল ঘূর্ণিঝড় রেমাল ১৮০ কিলোমিটারের মধ্যে। গার্মেন্টসে ঝুট ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ নিয়ে সরকারদলীয় দুই পক্ষের সংঘর্ষ বোয়ালখালীতে জাতীয় ভিটামিন এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন অবহিত করণ সভা অনুষ্ঠিত মৎস্যসম্পদ সংরক্ষণে  জেলেদের প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে আগেই বন্ধ করে দেওয়া হলো বঙ্গবন্ধু টানেল’ চন্দনাইশ উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থীকে গ্রেফতারের নির্দেশ

তারুণ্যের প্রতীক তসলিম উদ্দীন রানা পটিয়ায় নৌকা পেতে চান

  • প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ২৪ অক্টোবর, ২০২৩
  • ৬০৫ বার পড়া হয়েছে

তসলিম উদ্দীন রানা তৃণমূল থেকে উঠে আসা আওয়ামী রাজনীতির কঠিন দুঃসময়ের যোদ্ধা,আন্দোলন সংগ্রামের নির্ভীক মুজিব আদর্শের সৈনিক। ৯৬,২০০১ ও ১/১১ তে চট্রগ্রাম সিটি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে অধ্যায়ন অবস্থায় প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে অগ্রভাগে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ করেছে ছাত্রসমাজকে। বলা যায় মেধাবী এই ছাত্রনেতা বীর পটিয়ার সূর্য সন্তান।

ছাত্র জীবনে বিএনপি -জামাত জোট সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন সংগ্রাম করতে গিয়ে ততকালীন সরকারের রোষানলে পড়ে ২ তি পিন্ডিং হত্যা মামলা দিয়ে অমানবিক নির্যাতন করেন ও ১ বছরের অধিক কারাভোগ করেছেন।সেই মামলা থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য শ্রদ্ধেয় পিতা জনাব নুরুল আলম সওদাগর এর প্রায় ১০ গণ্ডা জমি বিক্রি করেন এমনকি জোট সরকারের আমলে তার পরিবারের উপর অমানবিক নির্যাতনের কারণে তার শ্রদ্ধেয় মাতা মরহুমা রিজিয়া বেগম স্ট্রোক করে মারা যান যা অত্যন্ত দু:খজনক ও বেদনাদায়ক ঘটনা।এছাড়াও তার উপর অনেক জেল জুলুম নির্যাতন হয়েছে তবুও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের উত্তরসুরী ও জননেত্রী শেখ হাসিনার কর্মী হিসাবে আওয়ামী রাজনীতির কঠিন দু:সময়ে মাঠে সার্বক্ষণিক কাজ করেছেন।বিরোধী দলের সময় তার অবদান অনস্বীকার্য ও অতুলনীয়।
মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় মুক্তিযোদ্ধাদের আশ্রয় দেওয়ার কারণে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী কর্তৃক তসলিম উদ্দীন রানার শ্রদ্ধেয় পিতামরহুম নুরুল আলম সওদাগর এর বাড়ি জ্বালিয়ে দেয় যা ইতিহাসের বর্বরোচিত ঘটনা। যুদ্ধের সময় তার বাড়ি জ্বালিয়ে দেওয়ার কারণে তার পরিবার মা-বাবা, ভাই- বোন নিয়ে অন্যত্র চলে যায়।যুদ্ধ শেষ হওয়ার পরে বাড়িতে আসলে কিছুই পায়নি এমনকি সরকারি সাহায্য সহযোগিতা পায়নি।তবুওবঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে দেশ স্বাধীন হয়েছে সেটা তার পরিবারের বড় পাওয়া।

১৯৭৮ সালের ১২ অক্টোবর চট্রগ্রাম জেলার পটিয়া উপজেলা জিরি গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।তার পিতা একজন বঙ্গবন্ধুর আদর্শিক রাজনীতির ধারক মরহুম নুরুল আলম সওদাগর ও মাতা মরহুমা রিজিয়া বেগমও।
তিনি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে চট্রগ্রাম সিটি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ থেকে বিএ সম্মান,এমএ (ভাষাতত্ত্ব) ও এমবিএ মার্কেটিং ডিগ্রি অর্জন করেন।নজরুল বিষয়ে গবেষণার কাজে জড়িত আছেন।

এছাড়াও সে বিশিষ্ট শিশু সংগঠক,হাজার হাজার নেতা বানানোর কারিগর,ছাত্র রাজনীতির মাঠের পরিক্ষীত বঙ্গবন্ধুর আদর্শের উত্তরসুরী ও জননেত্রী শেখ হাসিনার কর্মী। তাছাড়াও উল্লেখ্য যে সে
বর্তমানে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় অর্থ ও পরিকল্পনা উপকমিটির সদস্য,বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাবেক তথ্য ও গবেষণা উপকমিটির সদস্য, আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরিচালনা উপ-কমিটির সদস্য,৭ম যুব কংগ্রেস মঞ্চ ও সাজসজ্জা উপ-কমিটির সাবেক সদস্য,চট্রগ্রাম সিটি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি,চট্রগ্রাম সিটি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ বাঙলা বিভাগের সেমিনার সম্পাদক ও শ্রেণী প্রতিনিধি,চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য,এস এ নুর স্কুল ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি,
চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলার সাবেক সহ-সভাপতি ও উপদেষ্টা,
মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্ম কেন্দ্রীয় সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক,স্বাধীনতা মেলা পরিষদের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক, চট্রগ্রাম বিজয় মেলা উপ-পরিষদের যুগ্ম সচিব,আমরা ক’জন মুজিব সেনা চট্রগ্রাম জেলা শাখার প্রতিষ্ঠাতা প্রচার সম্পাদক,শেখ রাসেল স্মৃতি সংসদ পটিয়া উপজেলার উপদেষ্টা হিসাবে দায়িত্ব পালন করা ছাড়াও পটিয়া জিরি ইউনিয়নসহ,বহু সামাজিক,সাংস্কৃতিক,
ক্লাবের উপদেষ্টা হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন।
তসলিম উদ্দীন রানা বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়নে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্নের স্মার্ট বাংলাদেশ গঠনে কাজ করার আশা প্রকাশ করে বলেন, আমাকে অর্থ উপ-কমিটি চেয়ারম্যান ও সম্পাদক যে দায়িত্ব দিবে তা আদর্শিক দিক থেকে শতভাগ পালনের মাধ্যমে রাজনীতির মাঠে পরিক্ষীত সংগঠক ও কর্মী হিসেবে অগ্রনি ভুমিকা পালন করে দলের কঠিন দু:সময়ে কাজ করেছেন।শতভাগ বঙ্গবন্ধুর আদর্শের উত্তরসুরী ও জননেত্রী শেখ হাসিনার কর্মী হিসাবে পটিয়ার বিভিন্ন ইউনিয়ন ও পাড়া মহল্লায় সামাজিক,
সাংস্কৃতিক,উন্নয়নমুলক কাজ করে যাচ্ছে।পটিয়ার ক্রীড়া সামগ্রী,মসজিদ -মাদ্রাসা,গরীব নেতাকর্মীদের মাঝে সহযোগিতার মাধ্যমে এলাকার উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে।একজন তারুণ্যের প্রতীক হিসাবে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২৮৯ চট্টগ্রাম-১২ পটিয়া সংসদীয় আসনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেতে ইতিহাস ঐতিহ্য সাংস্কৃতিক ও স্মার্ট পটিয়া গঠনে তারুণ্য নির্ভর স্মার্ট পটিয়া বিনির্মানে সকলের সহযোগিতা ও দোয়া চাই।তিনি বলেন বীর পটিয়ার ইতিহাসের সাথে জড়িয়ে আছে বীর প্রীতিলতা ওয়েদ্দাদার,আব্দুল করিম সাহিত্যবিশারদ,
ড.মাহাফুজুল হক,ড.আহমদ শরীফ,রাজনীতিবিদ অধ্যাপক পুলিন দে,মানিক চৌধুরী, চৌধুরী হারুনুর রশীদ,এস এম ইউছুফ,সাবেক জাতীয় পরিষদ সদস্য জননেতা সুলতান আহমদ কুসুমপুরীর মত আরোঅনেক গুনীজনরা।এই পটিয়া ইতিহাসের পটিয়া।পটিয়ায় আনাচে কানাচে অনেক গুনীজনরা জন্মগ্রহণ করেন। তাদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে ইতিহাসের পটিয়া।এই সব গুণী মানুষদের খুজে বের করে ইতিহাসের পটিয়া গঠন করতে হবে।তাদের নামে স্কুল,
কলেজ,রাস্তাঘাটে তাদের নামে নামকরণ করা হবে,যাতে সবাই তাদেরকে চিনতে পারে আর ইতিহাস জানতে পারে।আর পটিয়ার অবহেলিত এলাকা চিহ্নিত করে কাজ করতে হবে।পশ্চিম পটিয়ার জন্য আলাদা উপজেলার মাধ্যমে জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নে প্রসার করা হল আমার কাজ।স্মার্ট পটিয়া বিনির্মানে তারুণ্য নির্ভর শিক্ষিত,মেধাবী ও আদর্শিক রাজনীতির বিকল্প নেই।স্মার্ট বাংলাদেশ গঠনে স্মার্ট মানুষ দরকার,সেই স্মার্ট তরুণেরা পারবে পটিয়াকে স্মার্ট করতে,তারুণ্যের বিকল্প নেই।আমার রাজনীতির জীবনের স্বপ্নকে কাজে লাগিয়ে ইতিহাসের পটিয়া গঠন করব ইনশাআল্লাহ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট